পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিনতম পেশা কোনটি?

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
5

Which is the most demanding and difficult profession that requires multiple types of skills? Firefighter, Astronaut, Coder, Event Coordinator or Police? The answer may surprise you.

 

আমার আগের লেখায় আমি ফিনল্যান্ডের উদারহণের মাধ্যমে দেখিয়েছিলাম কিভাবে পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত দেশগুলো তাদের স্কুল শিক্ষক নিয়োগ দেয়। ফিনল্যান্ড, নরওয়ে বা জাপানের মত উন্নত দেশগুলো একটি ব্যাপার বুঝে গেছে যে দেশের শিশুদের যদি সঠিক এবং মানসম্মত শিক্ষা না দেয়া হয় তাহলে দেশ বা জাতি হিসাবে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব না। আর সেই কাজটি আসলে করে শিক্ষকরা, তাদের স্কুলে। তাই সারা দেশ বাছাই করে সেরা মেধাবীদের তারা খুঁজে বের করে এবং উৎসাহ দেয় স্কুল শিক্ষক হওয়ার। সম্মান ও বেতনের দিক দিয়ে স্কুল শিক্ষকের পদগুলো থাকে যথেষ্ট আকর্ষণীয় যেন মেধাবীরা উৎসাহ পায়।

উন্নত দেশগুলো শিক্ষকতা পেশার ব্যাপারে একটা জিনিস বুঝে গেছে যেটি আমরা এখনও বুঝে উঠতে পারিনি হয়তো। তারা বুঝছে স্কুল শিশুদের পড়ানো হচ্ছে পৃথিবীর সব থেকে কঠিনতম কাজগুলোর একটি। এই কাজটি করার জন্য একজন ব্যাক্তির যে ধরণের স্কিল দরকার সেটি অন্য কোনও পেশায় দরকার নেই।

কি বিশ্বাস হচ্ছে না? চলুন তবে যুক্তি দিয়ে বুঝে নেই কেন স্কুল শিক্ষকতা পৃথিবীর কঠিনতম কাজ।

 

একজন শিক্ষককে হতে হয় খুব ভালো ম্যানেজারঃ

অফিসে সাধারণত একজন ম্যানেজারের কাছে রিপোর্ট করে কত জন? ৮-১০ জন? এর বেশি হয় না সাধারণত। একজন ভালো ম্যানেজার ৮-১০ জন মানুষের কাজের সব রিপোর্ট নিতে হয়, তার ব্যাক্তিগত উন্নয়নের দিকে খেয়াল রাখতে হয়, তাদের থেকে সঠিক সময়ে কাজগুলো বুঝে নিতে হয়।

একজন শিক্ষককের কাছে রিপোর্ট করে তার পুরো ক্লাসের সব শিশু। আমাদের দেশে সেটির অনুপাত ৪০:১ । শিক্ষককে খেয়াল রাখতে হয় প্রতিটি শিশু তার কাজ সঠিকভাবে করছে কিনা, তাদের ব্যাক্তিগত উন্নয়নের দিকে খেয়াল রাখতে হয়। যেকোনো একটি অফিসের ম্যানেজারকে যদি বলেন কালকে থেকে আপনার কাছে ৪০ জন রিপোর্ট করবে, সে ঐদিনই চাকরি ছেড়ে পালাবে।

 

একজন শিক্ষককে হতে হয় একজন ভালো লিডারঃ

শিক্ষককে কেবল ভালো ম্যানেজার হলেই হবে না, তাকে ভালো লিডারও হতে হবে। তার মানে তার মধ্যে লিডারশীপের গুনাবলিও থাকতে হবে।

একজন লিডার যেমন একটি দলকে অথবা একটি গ্রুপকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়, দলের সবাই তার কথায় এবং কাজে মুগ্ধ হয়ে তাকে অনুসরণ করে, একজন শিক্ষককেও তাই করতে হয়। একজন শিক্ষককে একই সাথে একজন ভালো মোটিভেসনাল স্পিকারও হতে হয়। কেননা একজন শিক্ষককেই তার ছাত্রছাত্রীদের স্বপ্ন দেখায় তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে।

 

একজন শিক্ষককে হতে হয় প্রবলেমসল্ভারঃ

উদ্যোগতারা একটি প্রবলেম সল্ভ করতে পারলে সেটির উপর ব্যবসা দাঁড় করিয়ে ফেলেন। ইঞ্জিনিয়াররা কোনও একটা সমস্যা সমাধান করতে পারলে কয়েকমাস বুক ফুলিয়ে অফিস যান। আর শিক্ষক প্রতিদিন তার ক্লাসের বাচ্চাদের নানারকম সমস্যার মুখোমুখি হন আর সেটার তৎক্ষণাৎ সমাধান করেন। আর সেসব সমস্যার বহর শুনলে তো আপনার মাথা ঘুরাবে। ক্লাসরুমে একজন শিক্ষককে প্রতিদিন যতগুলো এবং যতধরণের সমস্যা সমাধান করতে হয় পৃথিবীতে আর কোন পেশায় তা করতে হয় না। এবং এই সমস্যাগুলো সমাধান করতে তাকে হতে হয় ক্রিটিকাল থিঙ্কার।

 

একজন শিক্ষককে হতে হয় ভ্রাম্যমাণ উইকিপিডিয়াঃ

বাচ্চার বয়স ৩-৪ বছর বা তার কিছু বেশি সেসব বাচ্চাদের প্রশ্নের জ্বালায় অনেক বাবা-মার ঘুম হারাম। আকাশ কেন নীল, বৃষ্টি কেন পরে, আমি কোথায় থেকে এসেছি, ডাবের ভিতর পানি এলো কিভাবে… এরকম হাজারো প্রশ্ন শিশুমনে প্রতিনিয়ত আসতেই থাকে। এসব প্রশ্নের অনেকগুলোর উত্তর কিন্তু আমরা জানি না। তখন হয়তো ধমক দিয়ে, উল্টাপাল্টা একটা কিছু বুঝিয়ে তাদের নিরস্ত্র করা হয়। হয়তোবা ধরিয়ে দিলেন মোবাইল ফোন। এখন চিন্তা করুন একজন শিক্ষককে এরকম কত কত শিশুর শত শত প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়। আপনি কোনটার উত্তর না পারলে সমস্যা নেই। কিন্তু শিক্ষক জানে না মানে? বাচ্চারে স্কুলে দিলাম তো শেখার জন্য। তাই শিক্ষককে সব প্রশ্নের উত্তর জানতে হয়। আপনি যে প্রশ্নগুলোর উত্তর দেন না বা দিতে পারেন না সেগুলো শিশু কিন্তু স্কুলে এসে তার শিক্ষকের কাছেই জানতে চায়। আপনি না ধমক দিয়ে বা মোবাইল ফোন ধরিয়ে দিয়েই সাড়া। কিন্তু শিক্ষক বেচারা তো আবার ধমক দিতে পারবে না। তাহলে তো আবার পরের অভিভাবক মীটিঙেই তার গর্দান যাবে। তার কাছে তো ৩০-৪০ টা স্মার্টফোনও নাই যে গেম ওপেন করে দিয়ে দিবে সবাইকে একটা করে।

তাই শিক্ষককে প্রতিনিয়ত শিখতে হয়, প্রচুর পড়তে হয়, তাকে দুনিয়ার তাবত জিনিস সম্পর্কে জানতে হয়। ডরেমন-নবিতাকে চিনতে হয়, আবার রকেট কিভাবে চাঁদে যায় তাও জানতে হয়। এখন বলুনতো দুনিয়ার আর কোন পেশায় এতো সম্পর্কে ধারণা থাকতে হয়?

 

একজন শিক্ষককে করতে হয় মার্কেটিংঃ

ভাবছেন শিক্ষককে আবার মার্কেটিং কই করতে হয়? কেন অভিভাবক মীটিং আসলে কি? অভিভাবক মীটিঙে তাদের সন্তুষ্ট করতে হয় যে আমরা আমাদের স্কুলে খুব ভালো সার্ভিস দিচ্ছি। আপনি আপনার বাচ্চাকে আবার নিয়ে যাবেন না যেন। সরকারি স্কুলের শিক্ষকদের তো প্রতিনিয়ত অমুক এনজিও, তমুক প্রতিষ্ঠানের লোকদের দেখতে হচ্ছে। আবার শিক্ষা অফিসারের সাথেও রাখতে হচ্ছে ভালো সম্পর্ক। এগুলো তো সব মার্কেটিং ডিপার্টমেন্টের মানুষদের কাজ।

 

একজন শিক্ষককে হতে হয় খুব ভালো অফিস এক্সেকিউটিভঃ

একজন শিক্ষককে প্রতি বছর কি পরিমাণ রিপোর্ট আর ডকুমেন্ট তৈরি করতে হয় তা যদি সবাই জানতো। প্রতিটি বাচ্চার বাড়ির কাজ, খাতা দেখা, রেজাল্ট তৈরি, ক্লাসের লেকচার তৈরিসহ এমন হাজারটা কাজ তাদের করতে হয় যার বহর দেখলে যেকোনো ঝানু অফিস এক্সেকিউটিভের মাথা নষ্ট হওয়ার জোগাড় হবে।

 

এর বাইরেও আরও বেশ অনেকগুলো গুণ একজন শিক্ষকের থাকা লাগে। তাকে হতে হয় একজন শিশু বিশেষজ্ঞ। তার অপরের কথা মনোযোগ দিয়ে শুনার ক্ষমতা থাকা লাগে। তাকে হতে হয় একজন অভিভাবকও।

এখন তাহলে কি স্বীকার করবেন যে পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন পেশা কোনটি? এমন আরেকটি পেশার কথা বলুন যেখানে একজন মানুষকে এতো ধরণের গুণের অধিকারী হতে হয়, এতো ধরণের স্কিল লাগে?

………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………

আপনার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস আপনার সন্তান। সেই সন্তানের পুরো ভবিষ্যতের দায়িত্ব দিয়েছেন আপনি শিক্ষকদের উপর। এরকম কতশত অভিভাবকরাও তাই করেছেন। শিক্ষকের উপর দায়িত্বর বোঝাটা কত বড় সেটি কি অনুধাবণ করতে পারছেন একবার?

এখন বলুন এরকম একটি পেশার জন্য আপনি কি চাইবেন না দেশের সেরা মেধাবিদের হাতেই সেই দায়িত্ব দিতে? এবং এই জিনিসটিই উন্নত দেশগুলো বুঝতে পেরেছে বলেই তারা সেটাই করছে।

শেষ করার আগে একটি অনুরোধ থাকলো সব অভিভাবকদের কাছে যেন আপনারা আপনাদের সন্তানদের শিক্ষকদের মর্যাদাটুকু দেন। আমাদের দেশে আমরা শিক্ষকদের বেতন দেই খুব কম। আগেরকালে শিক্ষকদের যে সম্মান ছিল সেটিও এখন আর নেই। আপনি যদি সম্মান না দেন তাহলে আপনার সন্তানও তাদের সম্মান দিবে না।

আর শিক্ষক যারা এই লেখাটি পড়ছেন তাদের জন্য বলছি, জানবেন, আপনারা হলেন সমাজের আসল সুপারহিরো। আপনারা যে পেশাটি বেছে নিয়েছেন তা পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিনতম পেশা। সমাজ হিসাবে আমরা হয়তো আপনাদের প্রাপ্য মর্যাদাটুকু দিতে পারছি না, এটি আমাদের অযোগ্যতা। কিন্তু সততা এবং নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যান। উপরে যিনি আছেন, তার কাছে ঠিকই মর্যাদা পাবেন। ধন্যবাদ এই পেশাকে বেছে নেয়ার জন্য।

……………………………………………………………………………………………………………………………………………………………….

Share your thoughts
Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
5

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *