শিক্ষকতাঃ দক্ষতার এগারোটি অভ্যাস

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
15

যদি আপনি একজন শিক্ষক হয়ে থাকেন এবং আপনার জীবনকে শিক্ষকতা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করে থাকেন তবে আপনাকে অবশ্যই কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে, কিছু অভ্যাস আয়ত্ত করার পাশাপাশি তা অনুশীলন করতে হবে নিয়মিত। এই অভ্যাসগুলো কেবল আপনাকে একজন ভালো শিক্ষক হিসাবেই গড়ে তুলবে না, পাশাপাশি আপনার পেশাগত দক্ষতা বাড়াতেও সাহায্য করবে। আর একজন দক্ষ শিক্ষকের মূল্য সমাজে সবসময় বেশি।

শিক্ষকদের পাশাপাশি অভিভাবকদের জন্যও লেখাটি সমান গুরুত্বপূর্ণ। কারণ স্কুলের শিক্ষকদের আগে মা-বাবারাই সন্তানদের ‘প্রথম শিক্ষক’। আপনার সন্তানের মনে উদয় হওয়া হাজারো প্রশ্নের উত্তর কিন্তু অভিভাবকদেরকেই দিতে হয়। পুরো লেখাটিতে ‘শিক্ষক’ শব্দগুলো কেবল ‘অভিভাবক’ দিয়ে পরিবর্তন করে নিয়ে পড়লেই আপনি মূল ম্যাসেজটি পেয়ে যাবেন।

 

১। শিক্ষকতা উপভোগ করাঃ

আপনি তখনি পড়ানোকে উপভোগ করতে পারবেন যদি আপনি মন থেকে ক্লাসের বাচ্চাদের ভালবাসেন, তাদের উন্নতির কথা ভাবেন। আপনি নিজে পড়ানোটাকে মজার না বানাতে পারলে এটা প্রত্যাশা করতে পারেন না যে আপনার ক্লাসে বাচ্চারা তা মজা নিয়া শিখবে। আপনি যদি ক্লাসের প্রতিটা মুহূর্ত আনন্দদায়ক ও ইন্টারেক্টিভ করতে পারেন তবেই শিক্ষকতা এবং শেখা দুটোই উপভোগ্য হবে।

 

২। পার্থক্য তৈরী করাঃ 

শিক্ষকতা মানে শুধু পড়ানো না, বরং একটা অনেক বড় দায়িত্ব। শিক্ষকদের সবচেয়ে বড় কাজ হল ছাত্র-ছাত্রীদের জীবনে পরিবর্তন নিয়ে আসা এবং একটা পার্থক্য তৈরী করা। ছাত্র-ছাত্রীরা যেন আপনার ক্লাসে নিজেকে নিরাপদ, বিশেষ একজন এবং গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে। এই অনুভূতিটা আপনার  ক্লাসে তৈরি করাটা খুব জরুরী যাতে আপনার একটা ইতিবাচক প্রভাব তাদের মধ্যে থাকে। কারন আপনি তো জানেন না ক্লাসে ঢোকার পূর্বে কিংবা ক্লাস শেষে বাসায় ফেরার পর তারা কি ধরনের বাস্তবতা বা পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে সময় পার করে। সুতরাং তারা যদি পরিবার থেকে যথাযথ সাপোর্ট নাও পায় তবুও অন্ততপক্ষে আপনি তাদের জীবনে একটা পার্থক্য তৈরি করতে পারবেন।

আমাদের এক দিনের ট্রেনিং প্রোগ্রামে অংশ নিতে রেজিস্ট্রেশন করুন এই লিঙ্কেঃ http://teacherstimebd.com/critical-thinking-skill-for-solv…/

http://teacherstimebd.com/critical-thinking-skill-for-solv…/

৩। ইতিবাচকতা ছড়িয়ে দিনঃ

ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে ক্লাসে ঢুকুন প্রতিদিন। আপনার সুন্দর হাসিটি ধরে রাখুন সারাদিন এবং ছড়িয়ে দিন ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে। ক্লাসে ঢোকার পূর্বে আপনার সমস্ত সমস্যা, ব্যক্তিগত  প্রতিকূলতা, কষ্ট দরজার ওপাশে রেখে আপনার সর্বোচ্চটুকু নিয়ে হাজির হন ক্লাসে, বজায় রাখুন এই মুখোশটি এবং আপনার  ছাত্র-ছাত্রীদের ভাবতে দিন আপনাকে একজন সুপার হিরো হিসেবে। সবসময় ইতিবাচক এবং পজেটিভ এনার্জি নিয়ে ক্লাসে থাকলে তা যেমন ছড়িয়ে পড়ে তেমনি নেতিবাচকতাও ছড়িয়ে পড়ে উল্টোভাবে। তাই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিন আপনি কী করবেন।

 

৪। আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের জানুনঃ

একজন সফল শিক্ষকের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হল তিনি তার ছাত্র-ছাত্রীদের সমন্ধে খুব ভাল করে জানেন এবং তাদের আগ্রহ, সবলতা-দুর্বলতা সম্পর্কে অবগত, এবং  এই তথ্যগুলোর ভিত্তিতে তাদের প্রয়োজনীয় সাপোর্ট দেন। ক্লাসরুমের বাইরে আলাপচারিতায় শিক্ষার্থীকে সহজেই চেনা যায় বিভিন্নভাবে। আপনি আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের যত ভালভাবে জানবেন, পড়ানোটা তত সহজ হবে।

 

৫। নিজের সর্বোচ্চটুকু ঢেলে দিনঃ

শিক্ষক হিসেবে আপনি যখন নিজের সর্বোচ্চটুকু দিতে পারবেন তখনি আপনি আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের থেকে তাদের সর্বোচ্চটা প্রচেষ্টা প্রত্যাশা করতে পারবেন। তাই নিজের সর্বোচ্চটুকু ঢেলে দিন।

 

৬। মুক্তমনা হোনঃ

মুক্তমনা হওয়া এবং গঠনমূলক সমালোচনাকে পজিটিভভাবে নেওয়া একজন শিক্ষকের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ কারন আপনি প্রতিনিয়ত আপনার শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক, সহকর্মী এবং প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে সমালোচিত হন। কেউই আমরা শতভাগ নিখুঁত নই। সুতরাং সমালোচনাগুলো নিজের উন্নতির জন্য টিপস হিসেবে ব্যবহার করুন।

অভিভাবকেরা আমাদের পরবর্তী প্যারেন্টস টাইম ওয়ার্কশপে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন এই লিংকে… লিঙ্কঃ http://teacherstimebd.com/workshop-on-early-childhood-lear…/

 

৭। একটি আদর্শ মানদণ্ড নির্ধারণ করুনঃ

শিক্ষক হিসেবে কাজের একটি আদর্শ মানদণ্ড নির্ধারণ ক্রুন এবং তা শিক্ষার্থীদের সাথে শেয়ার করুন যাতে তারা বুঝতে পারে আপনি তাদের কাছে কিরকম কাজ ও ফলাফল প্রত্যাশা করেন, এবং তারা তা পূরনে নিজেদের যথাসাধ্য চেষ্টা করে।

 

৮। গোছালো হনঃ

কাজগুলো পরিকল্পনা করে, গুছিয়ে করুন, ক্লাসের লেসন প্ল্যান তৈরি করুন। আপনি যদি গুছিয়ে এবং প্ল্যান অনুযায়ী ক্লাস নেন তাহলে নিজেকে এবং শিক্ষার্থীদের অবস্থান বুঝতে পারবেন এবং সেই অনুযায়ী করণীয় ঠিক করতে পারবেন।

 

৯। নিজেকে প্রস্তুত করুনঃ

পড়ানোর জন্য আপনাকে কোনকিছু শূন্য থেকে শুরু করতে হবে না। একজন দক্ষ ও ক্রিয়েটিভ শিক্ষক সবকিছু এবং সব আইডিয়া নিজে সৃষ্টি করেনা বরং বিভিন্ন জায়গা থেকে রিসোর্স সংগ্রহ করেন। তাই নিজেকে আপডেটেড ও সমৃদ্ধ করতে নিয়মিত বই, ইউটিউব, পিন্টারেস্ট, ফেসবুক, ব্লগ ইত্যাদি ব্যবহার করে প্রয়োজনীয় রিসোর্স সংগ্রহ করুন ও প্রস্তুতি নিন।

১০। পরিবর্তনকে গ্রহণ করুনঃ

জীবনে সবকিছু পরিকল্পনা করে হয়না, পরিস্থিতির কারনে এবং প্রয়োজনে আমাদের কাজে পরিবর্তন আনতে হয়। আপনি যদি পরিবর্তনকে গ্রহণ করেন এবং নতুন নতুন বিষয় ও কৌশল আয়ত্ত করেন তবেই আপনার দক্ষতা সময়ের সাথে বাড়বে।

আমাদের এক মাসের সার্টিফিকেট কোর্সে ভর্তি হতে রেজিস্ট্রেশন করুন। লিঙ্কঃ

http://teacherstimebd.com/certificate-course-on-classroom-…/ 

১১। নিজেকে সময় দিন এবং চিন্তার প্রতিফলন করুনঃ

একজন দক্ষ শিক্ষক নিজের ক্লাসে যা ঘটে তা প্রতিনিয়ত চিন্তা করে এবং প্রতিফলনের মাধ্যমে বুঝতে পারে কিভাবে আরো ভাল করা যায়, ব্যর্থ্তা থেকে বেরিয়ে আসা যায়। তাই দক্ষতা বাড়াতে নিজেকে সময় দিন প্রতিনিয়ত, ভাবুন কী ভাল ছিল, কী পরিবর্তন আনতে হবে। তাহলেই আপনি দক্ষ শিক্ষক হয়ে উঠবেন।

এই এগারটি টিপস মনে রাখুন, চর্চা করুন নিয়মিত। দেখবেন আপনি পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর আর গুরুত্বপূর্ণ পেশায় আছেন। উপভোগ করুন শিক্ষকতা।

 

মূল লেখাঃ

11 Habits of an Effective Teacher by Carrie Lam , Academic Director, Teacher & Workshop Leader, Canada

https://www.edutopia.org/discussion/11-habits-effective-teacher

লেখাটি অনুবাদ করেছেন তাপসী রানি সরকার। তাপসী লাইট অফ হোপে কর্মরত আছেন।

Share your thoughts
Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
15

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *